Sunday, April 25, 2021

ইন্টারনেট অব থিংস বা IoT

নেটওয়ার্ক সংযোগের সঙ্গে যুক্ত একটি ফিজিক্যাল অবজেক্টকে বলা হয় ইন্টারনেট অব থিংস বা IoT (আইওটি)। বুঝলে না! আসলে আমরা জানি যে নেটওয়ার্ক শুধু সাধারণ ডিভাইসের মধ্যেই সীমাবদ্ধ,অথচ আমরা এমন একটি বিশ্ব গড়তে যাচ্ছি যার সকল কিছুই নিয়ন্ত্রণ করা হবে নেটওয়ার্ক দিয়ে।তাই ইন্টারনেট অব থিংস (IoT)কে কখনো কখনো ইন্টারনেট অব এভরিথিং বা IoEও বলা হয়ে থাকে।

IOT
        ইন্টারনেট অব থিংসের প্রতিকী উদাহরণ


একটা সময় আসবে যখন পৃথিবীর সমস্ত কিছুর নিয়ন্ত্রণ করা হবে নেটওয়ার্ক বা ইন্টারনেট দিয়ে, এমনকি ঘর ও ঘরের জিনিসপত্রও বাদ যাবে না এতে। অফিসে বসে ঘরের লক খোলা,এসি,গাড়ির দরজার লক খোলা সব কিছুই নিয়ন্ত্রণ করা যাবে নেটওয়ার্ক দিয়ে। ভাবতে অবাক লাগে, মাত্র কয়েক দশক আগেও সায়েন্স ফিকশন বা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর লেখকেরাও এর ধারণাও করতে পারেন নি। কিছুদিন পরে হয়তো কল্পকাহিনী আর বাস্তবের সাথে হয়তো খুব বেশি পার্থক্যই থাকবে না।


যুক্তরাষ্ট্রের কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির প্রফেসর মাইকেল ওয়াং তাঁর গবেষণায় দেখিয়েছেন যে যদি আইওটি-এর ব্যবহার নিশ্চিত করা যায় তবে আমাদের পোশাকশিল্পের আগুন সংক্রান্ত দুর্ঘটনা ৯০ ভাগ পর্যন্ত এড়ানো সম্ভব হবে। তাহলে বুঝতেই পারছো আইওটি আমাদের জীবনকে কতটা বদলে দেবে।


এবার আমরা জানবো আইওটি-এর শুরুর গল্প। ইন্টারনেট অব থিংস বা IoT নামক এই পরিভাষাটি সর্বপ্রথম ব্যাবহার করেন ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি)-এর অটো-আইডি সেন্টারের সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং নির্বাহী পরিচালক কেভিন অ্যাশটন (Kevin Ashton) ।এরপর থেকেই শুরু হয় ইন্টারনেট অব থিংস বা IoT নিয়ে চিন্তা ভাবনা।


আজ ইন্টারনেট অব থিংসের কল্যাণে ইশারায় স্মার্টফোন নিয়ন্ত্রণ করা যায়,এসি অন/অফ করা যায় শুধুমাত্র ভয়েস দিয়ে।এমন কি অফিসে বসেও এগুলোর নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে, আর এগুলো তখনই সম্ভব হবে যখন ইন্টারনেট অব থিংস নামক প্রযুক্তি বাস্তবায়ন করা যাবে।

       What is IoT?


ভাবতো,কোনো একদিন অফিস করে এসে ঘরের লক খুলতে হবে না শুধুমাত্র ভয়েস কমান্ডেই খুলে যাবে দরজা।আর ফ্যান কিংবা এসি অন করার জন্য যেতে হবে না সুইচ অন করতে, শুধু মাত্র ভয়েস কমান্ডেই চলবে তোমার এসি।

মনে করো, ভুল করে বাড়িতে ফ্যান চালু করে অফিসে আসলে আর অফিসে বসেই অফ করে দিলে ফ্যান। কেমন হবে তখন! অবশ্যই মজার তাই না।হ্যাঁ আশা করা যায় খুব শিগগিরই আমরা এমন একটা পৃথিবী তৈরি করবো।

প্রোগ্রামিং ভালোবাসি আর ধর্মকে সাথে করে বাঁচতে চাই।অন্যায় আর অধর্মকে ঘৃণা করি।বইয়ের সাথে আমার প্রচুর ভাব। আমার প্রফেশনাল পরিচয় হলো "কম্পিউটারের পোকা"।

0 Comments: