Tuesday, April 6, 2021

বায়োমেট্রিক প্রযুক্তিঃ ফিঙ্গারপ্রিন্ট পদ্ধতি

বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি বায়োমেট্রিক্স প্রযুক্তি (Biometrics Technology) হলো ফিঙ্গারপ্রিন্ট পদ্ধতি(fingerprint system),যাকে বাংলায় বলা যায় আঙুলের ছাপ পদ্ধতি।এই পদ্ধতি কীভাবে কাজ করে সেটা নিয়েই আজকে আমরা জানবো।তবে সেটা জানার আগে আমাদের জানতে হবে বায়োমেট্রিক্স প্রযুক্তি কী।

ফিঙ্গারপ্রিন্ট


বায়োমেট্রিক্স(Biometrics) শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ “bio” যার অর্থ Life অর্থাৎ জীবন আর  “metric” যার অর্থ পরিমাপ করা। অর্থাৎ বায়োমেট্রিক্স হলো বায়োলজিক্যাল ডেটা পরিমাপ এবং বিশ্লেষণ করার প্রযুক্তি। 


বায়োলজিক্যাল ডেটাগুলো মূলত দুই ভাগে ভাগ করা হয়ে থাকে। যথাঃ ১)শারীরবৃত্তীয় বা গঠনগত বৈশিষ্ট্য ও ২)আচরণগত বৈশিষ্ট্য


১)শারীরবৃত্তীয় বা গঠনগত বৈশিষ্ট্যঃ

  1.  ফেইস (Face)
  2.  আইরিস এবং রেটিনা (Iris & Retina)
  3.  ফিঙ্গার প্রিন্ট (Finger Print)
  4.  হ্যান্ড জিওমেট্রি ( Hand Geometry)
  5.  ডিএনএ (DNA)


২)আচরণগত বৈশিষ্ট্যঃ

  1. ভয়েস (Voice)
  2. সিগনেচার (Signature)
  3. টাইপিং কীস্ট্রোক ( Typing Keystroke)


এখন আসি ফিঙ্গারপ্রিন্ট নামক বায়োমেট্রিক প্রযুক্তি সম্পর্কে।আমরা জানি প্রতিটি মানুষের আঙুলের ছাপ পৃথক ও ভিন্ন।পৃথিবীতে এমন কোনো ব্যক্তি পাওয়া যাবে না যার আঙ্গুলের ছাপ অন্য কোনো ব্যক্তির সাথে হুবহু মিলে যাবে। ফিঙ্গারপ্রিন্ট নামক পদ্ধতিতে রিডার আঙুলের ছাপটিকে ইমেজ হিসেবে গ্রহণ করে এবং কিছু নির্দিষ্ট বৈশিষ্টের মাধ্যমে সেটাকে ডিজিটাল কোড তথা বাইনারি কোডে রুপান্তরিত করে।পরে এই বাইনারি কোড আর ইমেজে রুপান্তরিত হতে পারে না।

ফিঙ্গারপ্রিন্ট


পরবর্তীতে রিডার কোনো আঙুলের ছাপ পেলে সেটা ডিজিটাল কোডে রুপান্তরিত করে যাচাই করে এবং সঠিক আঙুলের ছাপ সনাক্ত করতে পারে।

প্রোগ্রামিং ভালোবাসি আর ধর্মকে সাথে করে বাঁচতে চাই।অন্যায় আর অধর্মকে ঘৃণা করি।বইয়ের সাথে আমার প্রচুর ভাব। আমার প্রফেশনাল পরিচয় হলো "কম্পিউটারের পোকা"।

0 Comments: